অনেক চেষ্টা করেও মৌলভীবাজারের জোড়া লাগানো দুই শিশুকে বাচাঁনো গেলোনা

ছায়াপথ ডেস্ক : অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মানতে হল ফুট ফুটে দুই বোনকে। অনেক চেষ্টা করেও মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শিংরাউলী গ্রামের পানদোকানী জুয়েল মিয়া ও তাকলিমা দম্পত্তির জোড়া লাগানো দুই শিশু কন্যাকে ১৪দিন পরও বাঁচানো গেলোনা। গত ৫ মে রাতে মৌলভীবাজার শহরের জান্নাত প্রাইভেট হাসপাতালে জন্ম নেয়া জোড়া লাগানো মেয়ে শিশু। জন্মকালীন সময় থেকেই দুজনের পেট একত্রে জোড়া লাগানো ছিল। তবে তাদের হাত, পা, মুখ ও মাথা সহ অন্যান্য অঙ্গ প্রত্যঙ্গ আলাদা।

এদিকে দুই শিশুকে আলাদা করতে দরিদ্র বাবা-মার সহযোগিতায় হাত বাড়িয়ে দেন মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ অনেকে। এরপর একরাশ সাহস নিয়ে পিতা জুয়েল মিয়া শিশুদের নিয়ে ঢাকা শিশু হাসপাতালে ভর্তি হন চিকিৎসার জন্য। অবশেষে ১৪ দিনে পর জোড়া শিশু গত বুধবার রাত ৯ টার দিকে ঢাকা শিশু হাসপাতালে মারা যায়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শিশুর পিতা শমশেরনগরের পান ব্যবসায়ী জুয়েল মিয়া। তিনি বলেন, অনেক চেষ্টার পর অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মানতে হল বাচ্চা দুটিকে। পরে ঢাকা থেকে লাশ বাড়িতে এনে বৃহস্পতিবার শিংরাউলী কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।