দগ্ধ তাজা প্রাণ (কবিতা)

 চন্দন চন্দ্র মহন্ত :

দগ্ধ কচি বৃক্ষের সারি, দগ্ধ তাজা প্রাণ
নষ্ট পথে বেহুলা সতী, শ্মশানে পালোয়ান।
জল নষ্ট, খেত নষ্ট, নষ্ট সবিশেষ
বীরের রক্তে অর্জিত হলো স্বাধীন বাংলাদেশ।
বিজয় নিশান কাঁধে তুলে রাখাল, ছুটে ভীষণ উল্লাসে
পেয়েছি মাগো স্বাধীনতা মোরা, বলে আর হাসে।
জেলে তাঁতি আর খর কুড়ানি যখন উদ্ভাসিত উদ্যানে
ঝিলের বুকে পদ্ম শাপলা মুজিব বাণী শোনে।
স্বাধীনতার এই ক্ষণে, মা-মাটির অন্তরতলে আজিকে পুলক জাগে
চারিদিকে শুনি বিজয় ধ্বনি জনসমুদ্রের বেগে।
কিন্তু, মাতা বিষাদ হর্ষে মুজিব কারাগারে
কখন আসিবে রতন-সোনা স্বদেশ সংসারে?
অবশেষে মুজিব মুক্তি পেল পাকিস্তান কারাগারে
 ইংল্যান্ড ভারত সফর শেষে ফিরিল নিজ ঘরে।
যখনি চরণের লাগিলো ছোঁয়া নিভিলো চোখের জল
হিমালয় থেকে উলুধ্বনি আসে ভেদিল ইন্দ্রজাল।
উঠিল রবি ফুটিল হাসি গাহিল নতুন গান
বাদক ছুটিল প্রণয় প্রয়াসে ভরিতে সবার প্রাণ।
সুখের সিন্ধু খুঁজিল বঙ্গবন্ধু করিতে দারিদ্র্যের অবসান
গরীব দুঃখী মেহনতী মানুষের তিনি এক জাগ্রত অভিযান।
যখন ১৫ই আগস্ট রক্তের বানে পদ্মা তুলিল ঢেউ
শকুনির ছলে নাজেহাল বঙ্গ বাঁচাতে আসে না কেউ।
ছিন্ন মতি ছিন্ন গতি ছিন্ন জাতির মূল
ভিন্ন স্বাদে বুঝায় গিয়ে শিখায় শত ভুল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।