নীলফামারীতে কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথর উদ্ধার : চোরাকারবারী চক্রের ১ জন গ্রেফতার

শাহজাহান আলী মনন : নীলফামারীর সৈয়দপুরে প্রায় কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথরে তৈরী শিল্পকর্মের ভাঙ্গা অংশ জব্দসহ এক চোরাকারবারিকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। ১০ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করেন জেলা গোয়েন্দা শাখার উপ-পরিদর্শক মোহাম্মদ রেজানুর রহমান।

তিনি জানান, গত সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) বিকালে জেলার সৈয়দপুর-পাবর্তীপুর মহাসড়কের চৌমুহনী বাজার মোড় থেকে ওই কষ্টিপাথরটি জব্দসহ চোরাকারবারি রওশন সরকার (১৯) কে গ্রেপ্তার করা হয়। সে দিনাজপুর জেলার পাবর্তীপুর উপজেলার বেলাইচন্ডি মাস্টারপাড়া গ্রামের শামসুল হকের ছেলে।

ডিবি জানায়, চোরকারবারিরা মুল্যবান পুরাকীর্তি পাচার করছে এমন গোপন খবর পেয়ে ডিবি’র উপ-পরিদর্শক মোহাম্মদ রেজানুর রহমানের নেতৃত্বে ডিবি’র একদল সদস্য ৭ সেপ্টেম্বর বিকালে সৈয়দপুর-পাবর্তীপুর মহাসড়কের চৌমুহনী বাজার মোড়ে অবস্থান নেয়।

এসময় চোরাকারবারিরা ডিবি’র উপস্থিতি টের পেয়ে পালানোর চেস্টাকালে চোরাকারবারি দলের সদস্য রওশন সরকারকে (১৯) আটক করে তার হাতে থাকা একটি ব্যাগে লুঙ্গি দিয়ে মোড়ানো মূলবান কষ্টিপাথরের তৈরী শিল্পকর্মের ভাঙ্গা অংশ জব্দ করা হয়। জব্দকৃত ওই শিল্পকর্মের ভাঙ্গা অংশে ফুল ও হাঁসের চিত্রকর্ম রয়েছে। ৩ দশমিক ৩৮৩ কেজি ওজনের কষ্টিপাথরটির এক প্রান্তের দৈর্ঘ্য ৭ ইঞ্চি অপর প্রান্তের দৈর্ঘ্য ৫ দশমিক ৫০ ইঞ্চি এবং প্রস্ত ৬ ইঞ্চি।

নীলফামারী জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরির্দশক মোঃ হারুন অর রশীদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, জব্দকৃত কষ্টিপাথরটি জেলা জুয়েলার্স সমিতির মাধ্যমে পরীক্ষা নিরিক্ষা করা হয়েছে। এটি একটি মূলবান কষ্টিপাথর। যার বাজার মূল্য ৯২ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা। এ ঘটনায় রওশন সরকারসহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার সৈয়দপুর থানায় ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫-বি(১)এ(২)/২৫-ডি ধারায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওই দিনই রওশনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মামলার অন্যান্য আসামীদের গ্রেপ্তারের ডিবি’র অভিযান অবাহ্যত রয়েছে।

উল্লেখ্য, নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা ও রংপুরের বদরগন্জ উপজেলার সীমান্ত এলাকায় একটি চোরাচালান চক্র রয়েছে। যারা দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মূল্যবান কষ্টিপাথর সহ পুরাকীর্তির নানা উপকরণ এনে পার্শ্ববর্তী দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর উপজেলার হিলি বন্দর ও নীলফামারী জেলার চিলাহাটি স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে পাচার করে। এছাড়াও এ চক্রটি স্থানীয় হিন্দুদের মাধ্যমে বিত্তশালী অনেক হিন্দু ব্যক্তি বা পরিবারকে এই ধরনের কষ্টিপাথরের মূর্তি বা প্রতিমা এনে দেয়ার কথা বলেও প্রতারনা করে চলেছে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।