নীলফামারীতে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষন

কিশোরীগঞ্জ প্রতিনিধি : নীলফামারীর পল্লীতে সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে জোড়পূর্বক ধর্ষণ করা হয়েছে। জেলার কিশোরীগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের মুছাখানপাড়া গ্রামে গতকাল বৃহস্পতিবার(১৯ নভেম্বর/২০২০) রাতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আজ শুক্রবার(২০ নভেম্বর/২০২০) বিকালে কিশোরীগঞ্জ থানায় মেয়ের বাবা বাদি হয়ে ধর্ষন মামলা দায়ের করেন। ওই ছাত্রী ওই গ্রামের জব্বার আলীর মেয়ে ও গাড়াগ্রাম আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেনীর ছাত্রী।
মামলার বিবরনে জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাতের খাবার খেয়ে সে বাড়ির দরজার সামনের রাস্তায় হাটাহাটি করছিল। এমন সময় হঠাৎ করে পিছন থেকে সদর ইউনিয়নের চৌকিদারপাড়ার মহসিন আলীর ছেলে আরিফ হোসেন(২২) তার মুখ চেপে ধরে ধানক্ষেতে নিয়ে গিয়ে জোড়পূর্বক ধর্ষণ করে। ধর্ষনে মেয়েটি অসুস্থ্য হয়ে পড়লে মেয়েটিকে তার বাড়ির সামনে ফেলে দিয়ে ধর্ষক আরিফ পালিয়ে যায়। পরিবারের লোকজন মেয়েটিকে খোজাখুজির সময় বাড়ির সামনের রাস্তার মাটিতে মেয়েটিকে পড়ে থাকতে দেখে। ওই রাতেই তাৎক্ষনিক ভাবে কিশোরীগঞ্জ থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে মেয়েটিকে উদ্ধার করে কিশোরীগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করে। আজ শুক্রবার বিকালে মেয়ের বাবা বাদি হয়ে আরিফ হোসেনের বিরুদ্ধে ধর্ষন মামলা দায়ের করেন।
মেয়েটি জানায়, গ্রামের আরিফ তাকে তুলে নিয়ে জোড় পূর্বক ধর্ষন করেছে। আমি তার কঠিন শাস্তি চাই।
কিশোরীগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল আউয়াল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মেয়ের বাবা বাদি হয়ে থানায় ধর্ষন মামলা দায়ের করেছেন। ধর্ষক আরিফকে গ্রেফতারের চেস্টা চলছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।